আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত হাদিস পাওয়া গেছে 44 টি

পরিচ্ছেদঃ ৩৬৪. দু'আর ফযিলত।

 ১৪৯৬. মুসাদ্দাদ (রহঃ) ..... আসমা বিন্তে য়াযীদ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেনঃ এই দুটি আয়াত হল আল্লাহ্‌র “ইসম আজম” মহান নাম।                     

১। (وَإِلَهُكُمْ إِلَهٌ وَاحِدٌ لاَ إِلَهَ إِلاَّ هُوَ الرَّحْمَنُ الرَّحِيمُ) অর্থাৎ তোমাদের ইলাহ এক, তিনি ছাড়া আর কোন ইলাহ নাই, যিনি দাতা-দয়ালু।

২। সূরা আল- ইমরানের প্রথমাংশঃ (الم * الله لا إله إلا هو الحى القيوم) আলিফ, লাম, মীম আল্লাহ্‌ ছাড়া আর কোন ইলাহ নাই, তিনি চিরঞ্জীব ও চিরস্থায়ী। ( তিরমিযী, ইবন মাজা)।

باب الدُّعَاءِ

حَدَّثَنَا مُسَدَّدٌ، حَدَّثَنَا عِيسَى بْنُ يُونُسَ، حَدَّثَنَا عُبَيْدُ اللَّهِ بْنُ أَبِي زِيَادٍ، عَنْ شَهْرِ بْنِ حَوْشَبٍ، عَنْ أَسْمَاءَ بِنْتِ يَزِيدَ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏"‏ اسْمُ اللَّهِ الأَعْظَمُ فِي هَاتَيْنِ الآيَتَيْنِ ‏(‏ وَإِلَهُكُمْ إِلَهٌ وَاحِدٌ لاَ إِلَهَ إِلاَّ هُوَ الرَّحْمَنُ الرَّحِيمُ ‏)‏ وَفَاتِحَةُ سُورَةِ آلِ عِمْرَانَ ‏(‏ الم * اللَّهُ لاَ إِلَهَ إِلاَّ هُوَ الْحَىُّ الْقَيُّومُ ‏)‏ ‏.‏


'Asma daughter of Yazid reported the Prophet (ﷺ) as saying: "Allah's Greatest Names is in these two verses: "And your Ilaah (God) is One Ilaah (God), none has the right to be worshipped but He, the Ever-Merciful, the Mercy-Giving' and the beginning of Surah Al 'Imran, "A.L.M Allah, there is no deity but He, the Living, the Eternal."


হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)
বর্ণনাকারীঃ আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ

পরিচ্ছেদঃ ১৭৯. তালাকপ্রাপ্তা রমনীর ইদ্দত।

২২৭৫. সুলায়মান  ইবন  আবদুল  হামীদ  বাহরানী .......... আসমা  বিনত  ইয়াযীদ  ইবন  আল -  সাকান আল  আনসারীয়া  (রাঃ)  হতে বর্ণিত।  তিনি  রাসূলুল্লাহ্  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর যুগে  তালাকপ্রাপ্তা হন,  আর সে  সময়  তালাকপ্রাপ্তা  রমনীর  জন্য  ইদ্দত  পালনের  কোন  প্রয়োজন  ছিল  না।  এরপর  আল্লাহ্  তা‘আলা  আসমার  তালাক  প্রাপ্তির  পর  ইদ্দত  সম্পর্কিয়  আয়াত  নাযিল  করেন।  আর  তিনিই  ছিলেন  সরবপ্রথম  মহিলা,  যার  সম্পর্কে  তালাকপ্রাপ্তা  মহিলাদের  জন্য  ইদ্দত  পাল  প্রয়োজন  এ  আয়াত  নাযিল  হয়।

باب فِي عِدَّةِ الْمُطَلَّقَةِ

حَدَّثَنَا سُلَيْمَانُ بْنُ عَبْدِ الْحَمِيدِ الْبَهْرَانِيُّ، حَدَّثَنِي يَحْيَى بْنُ صَالِحٍ، حَدَّثَنَا إِسْمَاعِيلُ بْنُ عَيَّاشٍ، حَدَّثَنِي عَمْرُو بْنُ مُهَاجِرٍ، عَنْ أَبِيهِ، عَنْ أَسْمَاءَ بِنْتِ يَزِيدَ بْنِ السَّكَنِ الأَنْصَارِيَّةِ، أَنَّهَا طُلِّقَتْ عَلَى عَهْدِ رَسُولِ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم وَلَمْ يَكُنْ لِلْمُطَلَّقَةِ عِدَّةٌ فَأَنْزَلَ اللَّهُ عَزَّ وَجَلَّ حِينَ طُلِّقَتْ أَسْمَاءُ بِالْعِدَّةِ لِلطَّلاَقِ فَكَانَتْ أَوَّلَ مَنْ أُنْزِلَتْ فِيهَا الْعِدَّةُ لِلْمُطَلَّقَاتِ ‏.‏


Amr ibn Muhajir reported on the authority of his father: Asma', daughter of Yazid ibn as-Sakan al-Ansariyyah, was divorced in the time of the Messenger of Allah (ﷺ). No waiting period was prescribed for a divorced woman (at that time). When Asma' was divorced, Allah, the Exalted, sent down the injunction of waiting period for divorce. She is the first of the divorced women about whom the verse relating to waiting period was sent down.


হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)
বর্ণনাকারীঃ আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ

পরিচ্ছেদঃ ১৬. শিশুর দুধ পানের সময় স্ত্রীর সাথে সংগম না করা সম্পর্কে।

৩৮৪১. আবূ তাওবা (রহঃ) .... আসমা বিনত ইয়াযীদ ইবন সাকান (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি যে, তোমরা তোমাদের সন্তানদের গোপনভাবে হত্যা করো না। কেননা, শিশুদের দুধ পান কালীন সময় স্ত্রীদের সাথে সংগম করলে তারা দুর্বল হয়ে যায়। পরে যখন তারা (বড় হয়ে) ঘোড়ায় চড়ে, তখন তারা ঘোড়ার পিঠ থেকে পড়ে যায়।

باب فِي الْغَيْلِ

حَدَّثَنَا الرَّبِيعُ بْنُ نَافِعٍ أَبُو تَوْبَةَ، حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ مُهَاجِرٍ، عَنْ أَبِيهِ، عَنْ أَسْمَاءَ بِنْتِ يَزِيدَ بْنِ السَّكَنِ، قَالَتْ سَمِعْتُ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم يَقُولُ ‏ "‏ لاَ تَقْتُلُوا أَوْلاَدَكُمْ سِرًّا فَإِنَّ الْغَيْلَ يُدْرِكُ الْفَارِسَ فَيُدَعْثِرُهُ عَنْ فَرَسِهِ ‏"‏ ‏.‏


Narrated Asma', daughter of Yazid ibn as-Sakan,: I heard the Messenger of Allah (ﷺ) as saying: Do not kill your children secretly, for the milk, with which a child is suckled while his mother is pregnant, overtakes the horseman and throws him from his horse.


হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai'f)
বর্ণনাকারীঃ আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ

পরিচ্ছেদঃ পরিচ্ছেদ নাই।

৩৯৪১. মূসা ইবন ইসমাঈল (রহঃ) .... আসমা বিনত ইয়াযীদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে নিম্নোক্ত আয়াতটি এ ভাবে তিলাওয়াত করতে শোনেনঃ (إِنَّهُ عَمِلَ غَيْرَ صَالِحٍ)।

حَدَّثَنَا مُوسَى بْنُ إِسْمَاعِيلَ، حَدَّثَنَا حَمَّادٌ، أَخْبَرَنَا ثَابِتٌ، عَنْ شَهْرِ بْنِ حَوْشَبٍ، عَنْ أَسْمَاءَ بِنْتِ يَزِيدَ، أَنَّهَا سَمِعَتِ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم يَقْرَأُ ‏(‏ إِنَّهُ عَمِلَ غَيْرَ صَالِحٍ ‏)‏ ‏.‏


Narrated Asma' daughter of Yazid: She heard the Prophet (ﷺ) read the verse: "He acted unrighteously." (innahu 'amila ghayra salih).


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ

পরিচ্ছেদঃ ২. কামীস সম্পর্কে।

৩৯৮৫. ইসহাক ইবন ইবরাহীম (রহঃ) .... আসমা বিনত ইয়াযীদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর জামার আস্তিন কব্জি পর্যন্ত লম্বা ছিল।

باب مَا جَاءَ فِي الْقَمِيصِ

حَدَّثَنَا إِسْحَاقُ بْنُ إِبْرَاهِيمَ الْحَنْظَلِيُّ، حَدَّثَنَا مُعَاذُ بْنُ هِشَامٍ، عَنْ أَبِيهِ، عَنْ بُدَيْلِ بْنِ مَيْسَرَةَ، عَنْ شَهْرِ بْنِ حَوْشَبٍ، عَنْ أَسْمَاءَ بِنْتِ يَزِيدَ، قَالَتْ كَانَتْ يَدُ كُمِّ قَمِيصِ رَسُولِ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم إِلَى الرُّصْغِ ‏.‏


Narrated Asma', daughter of Yazid,: The sleeve of the shirt of the Messenger of Allah (ﷺ) came to the wrist.


হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai'f)
বর্ণনাকারীঃ আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ

পরিচ্ছেদঃ ৮. মহিলাদের সোনা ব্যাবহার সম্পর্কে।

৪১৯০. মূসা ইব্‌ন ইসমাঈল (রহঃ) .... আস্‌মা বিনত ইয়াযীদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, রাসূলুল্লাহ্‌ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ যে মহিলা সোনার হার পরবে, কিয়ামতের দিন তাকে ঐ ধরনের আগুনের হার পরানো হবে। আর যে মহিলা তার কানে সোনার-বালা পরিধান করবে, কিয়ামতের দিন তাকে ঐ ধরনের আগুনের বালা পরানো হবে।

باب مَا جَاءَ فِي الذَّهَبِ لِلنِّسَاءِ

حَدَّثَنَا مُوسَى بْنُ إِسْمَعِيلَ حَدَّثَنَا أَبَانُ بْنُ يَزِيدَ الْعَطَّارُ حَدَّثَنَا يَحْيَى أَنَّ مَحْمُودَ بْنَ عَمْرٍو الْأَنْصَارِيَّ حَدَّثَهُ أَنَّ أَسْمَاءَ بِنْتَ يَزِيدَ حَدَّثَتْهُ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ أَيُّمَا امْرَأَةٍ تَقَلَّدَتْ قِلَادَةً مِنْ ذَهَبٍ قُلِّدَتْ فِي عُنُقِهَا مِثْلَهُ مِنْ النَّارِ يَوْمَ الْقِيَامَةِ وَأَيُّمَا امْرَأَةٍ جَعَلَتْ فِي أُذُنِهَا خُرْصًا مِنْ ذَهَبٍ جُعِلَ فِي أُذُنِهَا مِثْلُهُ مِنْ النَّارِ يَوْمَ الْقِيَامَةِ


Narrated Asma' daughter of Yazid: The Prophet (ﷺ) as saying: Any woman who wears a gold necklace will have a similar one of fire put on her neck on the Day of Resurrection, and any woman who puts a gold earring in her ear will have a similar one of fire put in her ear on the Day of Resurrection.


হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai'f)
বর্ণনাকারীঃ আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ

পরিচ্ছেদঃ ৭. মহিলাদের প্রতি সালাম করা- সম্পর্কে।

৫১১৪. আবূ বকর ইবন আবূ শায়বা (রহঃ) .... আসমা বিনত ইয়াযীদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, একবার নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মহিলাদের পাশ দিয়ে গমনকালে- আমাদের প্রতি সালাম করেন।

باب فِي السَّلاَمِ عَلَى النِّسَاءِ

حَدَّثَنَا أَبُو بَكْرِ بْنُ أَبِي شَيْبَةَ، حَدَّثَنَا سُفْيَانُ بْنُ عُيَيْنَةَ، عَنِ ابْنِ أَبِي حُسَيْنٍ، سَمِعَهُ مِنْ، شَهْرِ بْنِ حَوْشَبٍ يَقُولُ أَخْبَرَتْهُ أَسْمَاءُ بِنْتُ يَزِيدَ، مَرَّ عَلَيْنَا النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم فِي نِسْوَةٍ فَسَلَّمَ عَلَيْنَا ‏.‏


Asma', daughter of Yazid, said : the Prophet (ﷺ), passed us by when we were with some women and gave us a salutation.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ

পরিচ্ছেদঃ ৩৯. মহিলাদের অলঙ্কার এবং স্বর্ণ পরিধান করে প্রকাশ করা নিন্দনীয়

৫১৩৮. উবায়দুল্লাহ ইবন সাঈদ (রহঃ) ... আসমা বিনতে ইয়াযীদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে নারী সোনার হার ব্যবহার করে, তার গলায় কিয়ামতের দিন ঐরূপ আগুনের হার পরিয়ে দেয়া হবে। আর যে নারী কানে সোনার দুল পরে, কিয়ামতের দিন আল্লাহ্ তাআলা তাকে ঐরূপ আগুনের রিং পরাবেন।

الْكَرَاهِيَةُ لِلنِّسَاءِ فِي إِظْهَارِ الْحُلِيِّ وَالذَّهَبِ

أَخْبَرَنَا عُبَيْدُ اللَّهِ بْنُ سَعِيدٍ قَالَ حَدَّثَنَا مُعَاذُ بْنُ هِشَامٍ قَالَ حَدَّثَنِي أَبِي عَنْ يَحْيَى بْنِ أَبِي كَثِيرٍ قَالَ حَدَّثَنِي مَحْمُودُ بْنُ عَمْرٍو أَنَّ أَسْمَاءَ بِنْتَ يَزِيدَ حَدَّثَتْهُ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ أَيُّمَا امْرَأَةٍ تَحَلَّتْ يَعْنِي بِقِلَادَةٍ مِنْ ذَهَبٍ جُعِلَ فِي عُنُقِهَا مِثْلُهَا مِنْ النَّارِ وَأَيُّمَا امْرَأَةٍ جَعَلَتْ فِي أُذُنِهَا خُرْصًا مِنْ ذَهَبٍ جَعَلَ اللَّهُ عَزَّ وَجَلَّ فِي أُذُنِهَا مِثْلَهُ خُرْصًا مِنْ النَّارِ يَوْمَ الْقِيَامَةِ



Asma' bint Yazid narrated that: The Messenger of Allah [SAW] said: "Any woman who puts on a necklace of gold, Allah will put something similar of fire around her neck. Any woman who puts earrings of gold on her ears, Allah, the Mighty and Sublime, will put earrings of fire on her ears on the Day of Resurrection."


হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai'f)
বর্ণনাকারীঃ আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ

পরিচ্ছেদঃ ৩৬. উপরোল্লিখিত পাত্রসমূহের নিষেধাজ্ঞা চূড়ান্ত হারাম পর্যায়ের, কেবল শিষ্টাচারমূলক নয়, এ কথার দলীল

৫৬৪৪. সুওয়ায়দ (রহঃ) ... আসমা বিনত ইয়াযীদ (রাঃ) তাঁর চাচাত ভাই আনাস (রাঃ) এর নিকট শ্রবন করেছেন, তিনি বলেছেন, আল্লাহ্ তা'আলা কি বলেন নি যে, “রাসূল তোমাদেরকে যা দেন, তা তোমরা গ্রহণ কর; আর তিনি তোমাদেরকে যা থেকে নিষেধ করেন, তা থেকে তোমরা বিরত থাক।” (সূরা হাশরঃ ৭) আমি বললামঃ হ্যাঁ। তিনি আবার বললেনঃ আল্লাহ্ তা'আলা কি বলেন নি যে, “যখন আল্লাহ্ এবং তাঁর রাসূল কোন বিষয়ে আদেশ করেন, তখন মুসলমান পুরুষ অথবা নারীর সে বিষয়ে কোন এখতিয়ার থাকে না।” (সূরা আহযাবঃ ৩৬) আমি বললামঃ হ্যাঁ। তিনি বললেনঃ আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিষেধ করেছেন কাঠের পাত্র, আলকাতরা মাখা পাত্র, কদুর খােল এবং সবুজ কলস থেকে।

ذِكْرُ الدَّلَالَةِ عَلَى النَّهْيِ لِلْمَوْصُوفِ مِنْ الْأَوْعِيَةِ الَّتِي تَقَدَّمَ ذِكْرُهَا كَانَ حَتْمًا لَازِمًا لَا عَلَى تَأْدِيبٍ

أَخْبَرَنَا سُوَيْدٌ قَالَ أَنْبَأَنَا عَبْدُ اللَّهِ عَنْ سُلَيْمَانَ التَّيْمِيِّ عَنْ أَسْمَاءَ بِنْتِ يَزِيدَ عَنْ ابْنِ عَمٍّ لَهَا يُقَالُ لَهُ أَنَسٌ قَالَ قَالَ ابْنُ عَبَّاسٍ أَلَمْ يَقُلْ اللَّهُ عَزَّ وَجَلَّ مَا آتَاكُمْ الرَّسُولُ فَخُذُوهُ وَمَا نَهَاكُمْ عَنْهُ فَانْتَهُوا قُلْتُ بَلَى قَالَ أَلَمْ يَقُلْ اللَّهُ وَمَا كَانَ لِمُؤْمِنٍ وَلَا مُؤْمِنَةٍ إِذَا قَضَى اللَّهُ وَرَسُولُهُ أَمْرًا أَنْ يَكُونَ لَهُمْ الْخِيَرَةُ مِنْ أَمْرِهِمْ قُلْتُ بَلَى قَالَ فَإِنِّي أَشْهَدُ أَنَّ نَبِيَّ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ نَهَى عَنْ النَّقِيرِ وَالْمُقَيَّرِ وَالدُّبَّاءِ وَالْحَنْتَمِ


It was narrated from Asma' bint Yazid that: A paternal uncle of hers whose name was Anas said: "Ibn 'Abbas said: Does not Allah say: "And whatsoever the Messenger (Muhammad) gives you, take it; and whatsoever he forbids you, abstain (from it).'? He said: 'Yes.' He said: 'Does not Allah say: 'It is not for a believer, man or woman, when Allah and His Messenger have decreed a matter that they should have any option in their decision?' I said: 'Yes.' He said: 'I bear witness that the Prophet of Allah [SAW] forbade An-Naqir, Al-Muqayyar, Ad-Dubba', and Al-Hantam.'


হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai'f)
বর্ণনাকারীঃ আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ

পরিচ্ছেদঃ ৬/৫৩. মৃতের জন্য কান্নাকটি করা।

৩/১৫৮৯। আসমা বিনতে ইয়াযীদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-র শিশু পুত্র ইবরাহীম ইনতিকাল করলে তিনি নীরবে কাঁদেন। তাঁকে সান্ত্বনা দানকারী আবূ বাকর অথবা ‘উমার (রাঃ) বলেন, আপনি আল্লাহর শ্রেষ্ঠত্ব ও মহত্ব রক্ষার ব্যাপারে অধিক যোগ্য। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ চোখ অশ্রু বর্ষণ করছে, হৃদয় ব্যথিত হচ্ছে এবং আমরা এমন কিছু বলছি না, যা আমাদের প্রভুকে অসন্তুষ্ট করে। যদি তা (মৃত্যু) অবধারিত না হতো, ক্বিয়ামাতের দিন একত্র হওয়ার ওয়াদা না থাকতো এবং পরবর্তীদের জন্য পূর্ববর্তীদের অনুসরণ করার সিদ্ধান্ত না থাকতো, তাহলে হে ইবরাহীম! আমরা তোমার ব্যাপারে যে কষ্ট পেয়েছি, তার চেয়ে অধিক কষ্ট পেতাম। আমরা তোমার জন্য অবশ্যই দুঃখিত।
 

بَاب مَا جَاءَ فِي الْبُكَاءِ عَلَى الْمَيِّتِ

حَدَّثَنَا سُوَيْدُ بْنُ سَعِيدٍ حَدَّثَنَا يَحْيَى بْنُ سُلَيْمٍ عَنْ ابْنِ خُثَيْمٍ عَنْ شَهْرِ بْنِ حَوْشَبٍ عَنْ أَسْمَاءَ بِنْتِ يَزِيدَ قَالَتْ لَمَّا تُوُفِّيَ ابْنُ رَسُولِ اللهِ صلى الله عليه وسلم إِبْرَاهِيمُ بَكَى رَسُولُ اللهِ صلى الله عليه وسلم صلى الله عليه وسلم فَقَالَ لَهُ الْمُعَزِّي إِمَّا أَبُو بَكْرٍ وَإِمَّا عُمَرُ أَنْتَ أَحَقُّ مَنْ عَظَّمَ اللهُ حَقَّهُ قَالَ رَسُولُ اللهِ صلى الله عليه وسلم صلى الله عليه وسلم تَدْمَعُ الْعَيْنُ وَيَحْزَنُ الْقَلْبُ وَلَا نَقُولُ مَا يُسْخِطُ الرَّبَّ لَوْلَا أَنَّهُ وَعْدٌ صَادِقٌ وَمَوْعُودٌ جَامِعٌ وَأَنَّ الْآخِرَ تَابِعٌ لِلْأَوَّلِ لَوَجَدْنَا عَلَيْكَ يَا إِبْرَاهِيمُ أَفْضَلَ مِمَّا وَجَدْنَا وَإِنَّا بِكَ لَمَحْزُونُونَ


It was narrated that Asma’ bint Yazid said: “When Ibrahim, the son of the Messenger of Allah (ﷺ), died, the Messenger of Allah (ﷺ) wept. The one who was consoling him, either Abu Bakr or ‘Umar, said to him: ‘You are indeed the best of those who glorify Allah with what is due to him.’ The Messenger of Allah (ﷺ) said: ‘The eye weeps and the heart grieves, but we do not say anything that angers the Lord. Were it not that death is something that inevitably comes to all, and that the latter will surely join the former, then we would have been more than we are, verily we grieve for you.’”


হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)
বর্ণনাকারীঃ আসমা বিনতু ইয়াযীদ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
দেখানো হচ্ছেঃ 1 to 10 of 44 পাতা নাম্বারঃ 1 2 3 4 5 Next »