সহীহ শামায়েলে তিরমিযী ৩২. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পান করার পদ্ধতি (باب ما جاء في شرب رسول الله ﷺ)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দাঁড়ানো অবস্থায় যমযমের পানি পান করতেন:

১৫২. ইবনে আব্বাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নিশ্চয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দাঁড়ানো অবস্থায় যমযমের পানি পান করতেন।[1]

حَدَّثَنَا أَحْمَدُ بْنُ مَنِيعٍ ، قَالَ : حَدَّثَنَا هُشَيْمٌ ، قَالَ : حَدَّثَنَا عَاصِمٌ الأَحْوَلُ ، وَمُغِيرَةُ ، عَنِ الشَّعْبِيِّ ، عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ : أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , " شَرِبَ مِنْ زَمْزَمَ , وَهُوَ قَائِمٌ " .

حدثنا أحمد بن منيع ، قال : حدثنا هشيم ، قال : حدثنا عاصم الأحول ، ومغيرة ، عن الشعبي ، عن ابن عباس : أن النبي صلى الله عليه وسلم , " شرب من زمزم , وهو قائم " .


Ibn Abbas radiyallahu anhu says, “Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam drank Zam-zam water while he was standing.”

Sayyidina Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam has prohibited the drinking of water whilst standing. This shall be discussed in the commentary of the next hadith. For this reason some ulama have prohibited the drinking of Zam-zam also whilst standing. They say that he drank it whilst standing because of the huge crowds and the rush, or as a concession. The well-known view of the ulama is that Zam-zam is not included in this prohibition. It is better to stand and drink it.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৩২. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পান করার পদ্ধতি (باب ما جاء في شرب رسول الله ﷺ)

পরিচ্ছেদঃ

১৫৩. আমর ইবনে শু’আইব (রহ.) তাঁর পিতা হতে বর্ণনা করেন। তিনি তার পিতামহ হতে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে দাঁড়িয়ে ও বসে (উভয় অবস্থায়) পান করতে দেখেছি।[1]

حَدَّثَنَا قُتَيْبَةُ بْنُ سَعِيدٍ ، قَالَ : حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ جَعْفَرٍ ، عَنْ حُسَيْنٍ الْمُعَلِّمِ ، عَنْ عَمْرِو بْنِ شُعَيْبٍ ، عَنْ أَبِيهِ ، عَنْ جَدِّهِ ، قَالَ : رَأَيْتُ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , " يَشْرَبُ قَائِمًا , وَقَاعِدًا " .

حدثنا قتيبة بن سعيد ، قال : حدثنا محمد بن جعفر ، عن حسين المعلم ، عن عمرو بن شعيب ، عن أبيه ، عن جده ، قال : رأيت رسول الله صلى الله عليه وسلم , " يشرب قائما , وقاعدا " .


Amr ibn Shu’aib relates from his father, and he from his (Amr’s) grandfather,
that he said, “I had seen Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam drinking water whilst standing and also whilst sitting.”

There are many narrations mentioned wherein Sayyidina Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam prohibited the drinking of water whilst standing. A narration of Sayyidina Abu Hurairah radiyallahu anhu is mentioned in Sahih Muslim that Sayyidina Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam said, “No person should stand and drink water, and if one forgetfully stood and drank it, it should be vomited out.” Some ulama have summed both the deed and the prohibition in a few ways. Some ulama are of the opinion that the prohibition came later and repeals the previous law. Some ulama hold the opposite view that the narrations where he stood and drank water repeals the one that prohibits it. According to a well-known saying, the prohibition is not that of a Shar’ee or unlawful nature, but as an etiquette. It is also a blessing and kindness. Ibn Qayyim and others have mentioned the harm that standing and drinking causes. In short, Sayyidina Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam standing and drinking shows it being permissible to do so, and that it is not haraam to stand and drink water. It is best not do so, as this is against the recommended practice and one will be committing a makrooh act by doing so.


হাদিসের মানঃ তাহকীক অপেক্ষমাণ
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৩২. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পান করার পদ্ধতি (باب ما جاء في شرب رسول الله ﷺ)

পরিচ্ছেদঃ

১৫৪. ইবনে আব্বাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে যমযমের পানি পান করিয়েছি। আর তিনি তা দাঁড়িয়ে পান করেছেন।[1]

حَدَّثَنَا عَلِيُّ بْنُ حُجْرٍ ، قَالَ : حَدَّثَنَا ابْنُ الْمُبَارِكِ ، عَنْ عَاصِمٍ الأَحْوَلِ ، عَنِ الشَّعْبِيِّ ، عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ ، قَالَ : " سَقَيْتُ النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , مِنْ زَمْزَمَ , فَشَرِبَ , وَهُوَ قَائِمٌ " .

حدثنا علي بن حجر ، قال : حدثنا ابن المبارك ، عن عاصم الأحول ، عن الشعبي ، عن ابن عباس ، قال : " سقيت النبي صلى الله عليه وسلم , من زمزم , فشرب , وهو قائم " .


Ibn Abbas radiyallahu anhu says, “I gave Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam Zam-zam water to drink. He stood and drank it.”


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৩২. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পান করার পদ্ধতি (باب ما جاء في شرب رسول الله ﷺ)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ওযুর অবশিষ্ট পানি দাঁড়িয়ে পান করতেন :

১৫৫. নাযযাল ইবনে সাবরা (রহঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আলী (রাঃ) রাহবা তথা কুফার মসজিদের বারান্দায় অবস্থানকালে তাঁর জন্য এক মগ পানি আনা হলো। তিনি তা হতে এক অঞ্জলি পানি নিয়ে উভয় হাত ধৌত করলেন। তারপর কুলি করলেন এবং নাকে পানি দিলেন। এরপর মুখমণ্ডল মাসাহ করলেন। তারপর দাঁড়িয়ে অবশিষ্ট পানি পান করলেন। এরপর বললেন, যার ওযু ভঙ্গ হয়নি, তাঁর ওযু হচ্ছে এই। (তিনি বলেন) রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে আমি এরূপ করতে দেখেছি।[1]

حَدَّثَنَا أَبُو كُرَيْبٍ مُحَمَّدُ بْنُ الْعَلاءِ ، وَمُحَمَّدُ بْنُ طَرِيفٍ الْكُوفِيُّ ، قَالا : حَدَّثَنَا ابْنُ الْفُضَيْلِ ، عَنِ الأَعْمَشِ ، عَنْ عَبْدِ الْمَلِكِ بْنِ مَيْسَرَةَ ، عَنِ النَّزَّالِ بْنِ سَبْرَةَ ، قَالَ : " أَتَى عَلِيٌّ ، بِكُوزٍ مِنْ مَاءٍ , وَهُوَ فِي الرَّحْبَةِ , فَأَخَذَ مِنْهُ كَفًّا , فَغَسَلَ يَدَيْهِ , وَمَضْمَضَ , وَاسْتَنْشَقَ , وَمَسَحَ وَجْهَهُ وَذِرَاعَيْهِ وَرَأْسَهُ ، ثُمَّ شَرِبَ وَهُوَ قَائِمٌ " ، ثُمَّ قَالَ : " هَذَا وُضُوءُ مَنْ لَمْ يُحْدِثْ ، هَكَذَا رَأَيْتُ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , فَعَلَ " .

حدثنا أبو كريب محمد بن العلاء ، ومحمد بن طريف الكوفي ، قالا : حدثنا ابن الفضيل ، عن الأعمش ، عن عبد الملك بن ميسرة ، عن النزال بن سبرة ، قال : " أتى علي ، بكوز من ماء , وهو في الرحبة , فأخذ منه كفا , فغسل يديه , ومضمض , واستنشق , ومسح وجهه وذراعيه ورأسه ، ثم شرب وهو قائم " ، ثم قال : " هذا وضوء من لم يحدث ، هكذا رأيت رسول الله صلى الله عليه وسلم , فعل " .


Nazzaal ibn Sabrah rahmatullahi alaihe says that while he was with Sayyidina Ali in the courtyard (of the Masjid at Kufah), water was brought in a clay pot to him. He took some water in his palms, washed his hands, gargled his mouth, put water in his nose (cleaned it), then made masah of his face, hands and head. Thereafter he stood and drank from it. Then said, “This is the
wudhu of a person who is in a state of wudhu. I had observed Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam perform (wudhu) in this manner.”

এখানে দুটি সম্ভাবনা রয়েছে। তাঁর একটি হলো হাত-মুখ প্রকৃত অর্থেই মাসেহ করেছেন। এ হিসেবে একে ওযু বলা হয়েছে রূপক অর্থে। যাকে আভিধানিক অর্থেও ওযু বলা যায়। পা ধৌত করার কথা উল্লেখ না থাকাতেও এটা বুঝা যায়। দ্বিতীয়টি হচ্ছে, অল্প ধৌত করাকে মাসেহ বলা হয়েছে। কোন কোন বর্ণনায় মাসেহ এর পরিবর্তে হাত মুখ ধৌত করার কথা উল্লেখ রয়েছে। পা ধোয়ার কথাও কোন কোন বর্ণনাতে এসেছে। কাজেই হাদীসে ওযু করাই উদ্দেশ্য।


This hadith is mentioned in brief. The full narration is mentioned in Mishkat from Bukhari. In this hadith it may be possible that in reality he only made masah of the face, hands, etc. And did not actually wash them. To call this wudhu will be metaphorical.

The feet are not mentioned here but presumedly he did masah of them also.

Another elucidation may be that in this hadith the washing of the limbs lightly has been metaphorically explained as masah. This explanation is supported by some narrations where, instead of masah, washing of the face and hands and also the washing of the feet is mentioned. In this case the renewal of wudhu is meant. This exposition is best according to this humble servant.

We also find from this hadith that it is permissible to stand and drink the left over water after wudhu. The permissibility of drinking this water and the water of Zam-zam while standing is mentioned in the kitaabs of fiqh (jurisprudence). Allaamah Shaami has mentioned the experience of some Ulama that it is a tested and proved antidote for diseases. Mulla Ali Qari has mentioned this act as meritorious in the commentary of the Shamaail.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৩২. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পান করার পদ্ধতি (باب ما جاء في شرب رسول الله ﷺ)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পান করার সময় তিনবার শ্বাস নিতেন:

১৫৬. আনাস ইবনে মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নিশ্চয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন পান করতেন তখন তিনবার শ্বাস নিতেন এবং বলতেন, তা অধিক স্বাস্থ্যকর ও তৃপ্তিদানে অধিকতর সহায়ক।[1]

حَدَّثَنَا قُتَيْبَةُ بْنُ سَعِيدٍ ، وَيُوسُفُ بْنُ حَمَّادٍ ، قَالا : حَدَّثَنَا عَبْدُ الْوَارِثِ بْنُ سَعِيدٍ ، عَنْ أَبِي عصَامَ ، عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ ، أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ : كَانَ يَتَنَفَّسُ فِي الإِنَاءِ ثَلاثًا إِذَا شَرِبَ ، وَيَقُولُ : " هُوَ أَمْرَأُ , وَأَرْوَى " .

حدثنا قتيبة بن سعيد ، ويوسف بن حماد ، قالا : حدثنا عبد الوارث بن سعيد ، عن أبي عصام ، عن أنس بن مالك ، أن النبي صلى الله عليه وسلم : كان يتنفس في الإناء ثلاثا إذا شرب ، ويقول : " هو أمرأ , وأروى " .


Anas ibn Malik radiyallahu anhu relates that Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam drank water in three breaths (i.e. in three gulps/sips) and used to say, “It is more pleasing and satisfying in this manner.”

It has been prohibited to drink water in one gulp. The Ulama have written many harmful effects in drinking water in one breath. It especially weakens the muscles and nerves. It is also detrimental for the liver and stomach.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৩২. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পান করার পদ্ধতি (باب ما جاء في شرب رسول الله ﷺ)

পরিচ্ছেদঃ

একদা তিনি দাঁড়ানো অবস্থায় মশক হতে পানি পান করেন :

১৫৭. কাবশা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, একবার রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমার নিকট আসলেন। তখন তিনি লটকানো মশক হতে দাড়ানো অবস্থায় পানি পান করলেন। এরপর আমি দাঁড়ালাম এবং মশকের মুখটি কেটে নিলাম।[1]

حَدَّثَنَا ابْنُ أَبِي عُمَرَ ، قَالَ : حَدَّثَنَا سُفْيَانُ ، عَنْ يَزِيدَ بْنِ يَزِيدَ بْنِ جَابِرٍ ، عَنْ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ أَبِي عَمْرَةَ ، عَنْ جَدَّتِهِ كَبْشَةِ ، قَالَتْ : " دَخَلَ عَلَيَّ النَّبِيُّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَشَرِبَ مِنْ قِرْبَةٍ مُعَلَّقَةٍ قَائِمًا ، فَقُمْتُ إِلَى فِيهَا فَقَطَعْتُهُ " .

حدثنا ابن أبي عمر ، قال : حدثنا سفيان ، عن يزيد بن يزيد بن جابر ، عن عبد الرحمن بن أبي عمرة ، عن جدته كبشة ، قالت : " دخل علي النبي صلى الله عليه وسلم فشرب من قربة معلقة قائما ، فقمت إلى فيها فقطعته " .


Kabshah bint Thabit radiyallahu anha narrates, “Rasoolullah sallallahu alaihe
wasallam visited my home. A leather water bag was hanging there, Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam stood and drank water from the mouth of the water bag. I got up and cut out the mouth (portion) of the bag.”

Imam Nawawi has mentioned two reasons from Imam Tirmizi for cutting the mouth portion of the water bag:

1. Tabarrukan (for barakah), because the mubaarak saliva of Sayyidina Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam had come in contact with it and she wanted to keep it.

2. She did not want anybody else to drink from the same portion where Sayyidina Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam had drank. The reason being respect and courtesy. It will be disrespectful if someone else drank from the same place. There are two things mentioned in this hadith. One is standing and drinking which has already been discussed in Hadith 4. The second is that it is reported in the Bukhari from Sayyidina Anas radiyallahu anhu that it has been prohibited to drink from the mouth of a water bag. Therefore we shall take this hadith to show the permissibility of doing so. It is related in a hadith that a person was drinking from a water bag and a snake came out from it. On hearing this Sayyidina Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam forbade the drinking of water direct from a water bag.

According to this hadith, the drinking of water in this manner apparently seems to have taken place in the early period. A special note should be made here. One of the reasons of prohibiting the drinking of water in this manner is that every person’s mouth is not such that if it touches a water bag etc. it will not leave a smell. Certainly there are mouths whose saliva is a cure of diseases, and which is more tastier than everything in the world and creates more happiness than everything else. Therefore the drinking of Sayyidina Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam from a water bag cannot be compared with others.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৩২. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পান করার পদ্ধতি (باب ما جاء في شرب رسول الله ﷺ)

পরিচ্ছেদঃ

আনাস (রাঃ)ও তিন শ্বাসে পানি পান করতেন :

১৫৮. সুমামা ইবনে আবদুল্লাহ (রহ.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আনাস ইবনে মালিক (রাঃ) তিন শ্বাসে পানি পান করতেন এবং বলতেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তিন শ্বাসে পানি পান করতেন।[1]

حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ بَشَّارٍ ، قَالَ : حَدَّثَنَا عَبْدُ الرَّحْمَنِ بْنُ مَهْدِيٍّ ، قَالَ : حَدَّثَنَا عُزْرَةُ بْنُ ثَابِتٍ الأَنْصَارِيُّ ، عَنْ ثُمَامَةَ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ ، قَالَ : كَانَ أَنَسُ بْنُ مَالِكٍ ، يَتَنَفَّسُ فِي الإِنَاءِ ثَلاثًا ، وَزَعَمَ أَنَسٌ ، " أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , كَانَ يَتَنَفَّسُ فِي الإِنَاءِ ثَلاثًا " .

حدثنا محمد بن بشار ، قال : حدثنا عبد الرحمن بن مهدي ، قال : حدثنا عزرة بن ثابت الأنصاري ، عن ثمامة بن عبد الله ، قال : كان أنس بن مالك ، يتنفس في الإناء ثلاثا ، وزعم أنس ، " أن النبي صلى الله عليه وسلم , كان يتنفس في الإناء ثلاثا " .


Sayyidina Thumaamah ibn Abdullah radiyallahu anhu says, “Sayyidina Anas ibn Malik drank water in three breaths, and claimed that Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam also drank water in the same manner.”


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৩২. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পান করার পদ্ধতি (باب ما جاء في شرب رسول الله ﷺ)

পরিচ্ছেদঃ

১৫৯. আনাস ইবনে মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। একবার নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আনাস (রাঃ) এর মাতা উম্মে সুলায়ম (রাঃ) এর বাড়ি যান। সেখানে একটি মশক ঝুলন্ত ছিল। এরপর তিনি দাঁড়ানো অবস্থায় মশকটির মুখ হতে পানি পান করলেন। এরপর উম্মে সুলায়ম (রাঃ) মশকের নিকট পৌছান এবং তাঁর মুখ কেটে নেন।[1]

حَدَّثَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ عَبْدِ الرَّحْمَنِ ، قَالَ : حَدَّثَنَا أَبُو عَاصِمٍ ، عَنِ ابْنِ جُرَيْجٍ ، عَنْ عَبْدِ الْكَرِيمِ ، عَنِ الْبَرَاءِ بْنِ زَيْدٍ ابْنِ ابْنَةِ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ ، عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ ، " أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , دَخَلَ عَلَى أُمِّ سُلَيْمٍ , وَقِرْبَةٌ مُعَلَّقَةٌ , فَشَرِبَ مِنْ فَمِ الْقِرْبَةِ وَهُوَ قَائِمٌ ، فَقَامَتْ أُمُّ سُلَيْمٍ إِلَى رَأْسِ الْقِرْبَةِ فَقَطَعَتْهَا " .

حدثنا عبد الله بن عبد الرحمن ، قال : حدثنا أبو عاصم ، عن ابن جريج ، عن عبد الكريم ، عن البراء بن زيد ابن ابنة أنس بن مالك ، عن أنس بن مالك ، " أن النبي صلى الله عليه وسلم , دخل على أم سليم , وقربة معلقة , فشرب من فم القربة وهو قائم ، فقامت أم سليم إلى رأس القربة فقطعتها " .


Anas radiyallahu anhu reports, “Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam went to my mother, Umme Sulaim’s house. A leather water bag was hanging there. Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam stood and drank water from it. Umme Sulaim radiyallahu anha stood up and cut off that portion of the bag.”

The same type of incident of Sayyidatina Kabshah radiyallahu anha has been related in another hadith. It is however difficult to sit and drink from a water bag which is hanging. These are things that are done in times of necessity. A few ahaadith reported on the incident of Sayyidatina Umme Sulaim radiyallahu anha that she said, while cutting off the mouth piece of the water bag from which Sayyidina Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam had drank, “No one shall put their mouth on it and drink from it again.” We understand from this that she did it out of love and respect for Sayyidina Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৩২. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পান করার পদ্ধতি (باب ما جاء في شرب رسول الله ﷺ)

পরিচ্ছেদঃ

১৬০. সা’দ ইবনে আবু ওয়াক্কাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দাঁড়ানো অবস্থায় পানি পান করতেন।[1]

حَدَّثَنَا أَحْمَدُ بْنُ نَصْرٍ النَّيْسَابُورِيُّ ، قَالَ : حَدَّثَنَا إِسْحَاقُ بْنُ مُحَمَّدٍ الْفَرْوِيُّ ، قَالَ : حَدَّثَتْنَا عَبِيدَةُ بِنْتُ نَائِلٍ ، عَنْ عَائِشَةَ بِنْتِ سَعْدِ بْنِ أَبِي وَقَّاصٍ ، عَنِ أَبِيهَا ، أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , " كَانَ يَشْرَبُ قَائِمًا "

حدثنا أحمد بن نصر النيسابوري ، قال : حدثنا إسحاق بن محمد الفروي ، قال : حدثتنا عبيدة بنت نائل ، عن عائشة بنت سعد بن أبي وقاص ، عن أبيها ، أن النبي صلى الله عليه وسلم , " كان يشرب قائما "


Sa’d ibn Abi Waqqaas radiyallahu anhu says, “Rasoolullah sallallahu alaihe wasallam drank water while standing.”

This was not a habit, he did it now and then due to some reason. This has been discussed already.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৩২. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পান করার পদ্ধতি (باب ما جاء في شرب رسول الله ﷺ)
দেখানো হচ্ছেঃ থেকে ৯ পর্যন্ত, সর্বমোট ৯ টি রেকর্ডের মধ্য থেকে